Templates by BIGtheme NET
সদ্যপ্রাপ্ত সংবাদ

ফণী নিয়ে মমতা-মোদির পাল্টাপাল্টি অভিযোগ

ভারতসহ পশ্চিমবঙ্গে পঞ্চম দফায় লোকসভা নির্বাচনের ভোটগ্রহণ সোমবার (৬ মে) অনুষ্ঠিত হয়। এদিন রাজ্যে ফের ষষ্ঠবারের মত হয়ে গেল মোদী-মমতা দ্বৈরথ। তবে অন্যান্য ইস্যুর মধ্যে এবারে দুই হেভিওয়েটের জনসভায় মূল ইস্যু ছিল ঘূর্ণিঝড় ফণী। দাবি, পাল্টা দাবিতে, ৩৬ ডিগ্রি গরমকেও হার মানালো এই দুই প্রতিদ্বন্দ্বী।

প্রসঙ্গত, ঘূর্ণিঝড় ফণীর দাপটে ক্ষয়ক্ষতির খবর নিতে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে দুই দু’বার ফোন করেছিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। কিন্তু তাতে সাড়া দেননি পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা। রোববার (৫ মে) এমনই দাবি করেছেন প্রধনমন্ত্রীর দফতর। এরপর ওই রাতেই জানা যায়, নির্বাচনি প্রচারে সোমবার রাজ্যে এসে, প্রথমে ফণীর ক্ষয়ক্ষতি নিয়ে বৈঠক করবেন প্রধানমন্ত্রী। পাশাপাশি আরও কতটা আর্থিক সাহায্য দরকার কি-না, তার খোঁজও নেবেন তিনি।

কিন্তু সোমবার এনিয়ে কোনও বৈঠক হয়নি। এ প্রসঙ্গে গোপীবল্লভপুরে জনসভায় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, ‘আপনাকে প্রধানমন্ত্রী মানি না, তাই আপনার সঙ্গে বৈঠকে বসিনি। ফণী নিয়ে মোদি রাজনীতি করছেন।’

অপরদিকে প্রধানমন্ত্রী বলেন, দিদি (মমতা) আপনাদের ভালো চায় না, তাই বৈঠক করেনি। দিদি যদি সত্যিই রাজ্যবাসীকে ভালোবাসত, তাহলে ভোট ভুলে আমার সাথে বৈঠকে বসত। আমি এখানে আসার আগে ওড়িশার মুখ্যমন্ত্রীর সাথে বৈঠক করে এলাম। স্পিড ব্রেকার দিদি আপনাদের ভালোবাসে না।

এর জবাবে মমতা বলেন, ‘ওষুধের মত ওনারও মেয়াদ শেষ। উনি এক্সপায়ারি পিএম। আমি নতুন প্রধানমন্ত্রীকে রিপোর্ট দেব।’

এছাড়া মোদি অভিযোগ করেন, ‘মাসুদ আজহারকে আন্তর্জাতিক জঙ্গি হিসেবে ঘোষণা করেছে রাষ্ট্রসংঘ, এটা দেশবাসীর গর্ব। কিন্তু এ নিয়ে কোনো মন্তব্য করেনি দিদি।’

অন্যদিকে, মমতা বিজেপিকে সাম্প্রদায়িক দল বলে আখ্যা দেন। বিজেপি ধর্ম নিয়ে রাজনীতি করে বলে জনসভা থেকে তোপ দাগেন তিনি।

পঞ্চম দফার ভোট শেষ হলেও ভারতে সামান্যতম কমেনি রাজনৈতিক উত্তাপ। এর ফল কী হবে, তা ২৩ মে বলবে। কিন্তু বিনা যুদ্ধে সুচাগ্র মেদিনি ছেড়ে দিতে কোনো পক্ষই রাজি নন। তা হাড়ে হাড়ে টের পাচ্ছেন রাজ্যবাসী।