Templates by BIGtheme NET
সদ্যপ্রাপ্ত সংবাদ

বিশ্বকাপ মঞ্চে সর্বোচ্চ রান সংগ্রহকারীরা

স্পোর্টস ডেস্ক:
দরজায় কড়া নাড়ছে বিশ্বকাপ ক্রিকেটের দ্বাদশ আসর। হাতে বাকি আছে আর ১৫ দিন। এরপরই ইংল্যান্ড অ্যান্ড ওয়েলসের দশটি মাঠে প্রায় দেড়মাস ধরে চলবে ক্রিকেটের এ মহাযজ্ঞ। যেখানে বিশ্বের দশটি দেশ একে অপরের মুখোমুখি হবে। এরপর ১৪ জুলাই নির্দিষ্ট একটি দেশের হাতে সোনালী ট্রফি তুলে দিয়ে থামবে এ লড়াই।

গত এগারোটি আসরে অনেক ইতিহাস গড়েছে আবার ভেঙেছে। বিশ্বকাপের ইতিহাস লেখার সেই পাতাগুলোও অপেক্ষা করছে নতুনদের ঠাঁই দেয়ার জন্য। কেউ এক বিশ্বকাপে সর্বোচ্চ উইকেট শিকার করে, সর্বোচ্চ রান করে কিংবা সর্বোচ্চ ক্যাচ নিয়ে। এমন অনেক কিছুই দেখা যাবে আসছে আসরেও।

তার আগে আসুন জেনে নেই বিশ্বকাপে সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহকের তালিকায় এখন পর্যন্ত সেরা পাঁচে কারা আছেন।

শচীন রমেশ টেন্ডুলকার (ভারত)
২০১১ বিশ্বকাপ জয়ী ভারতীয় দলের সদস্য। ভারতের যাকে ক্রিকেট ঈশ্বর নামে পূজো করা হয়। ক্রিকেট বিশ্ব একনামে চিনে শচীন টেন্ডুলকার নামে। ক্রিকেট বিশ্বের একমাত্র ব্যাটসম্যান যার আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ারে রয়েছে সেঞ্চুরির সেঞ্চুরি। ১৯৯২ থেকে ২০১১ পর্যন্ত মোট ছয়টি বিশ্বকাপে অংশগ্রহণ করে ৫৬.৯৫ গড়ে করেছেন ২ হাজার ২৭৮ রান। যার কারণে তিনি বিশ্বকাপের ইতিহাসে সর্বোচ্চ রান সংগ্রহের তালিকায় রয়েছেন শীর্ষে। ৪৫ ম্যাচের মধ্যে ৪৪ ইনিংসে ব্যাটিং করে করেছেন ৬টি সেঞ্চুরি ও ১৫টি হাফ সেঞ্চুরি। বিশ্বকাপে লিটল মাস্টারের সর্বোচ্চ ১৫২ রানের ইনিংস। ২০১১ সালের দশম বিশ্বকাপে তার দেশ ভারত চ্যাম্পিয়ন হয়।

রিকি থমাস পন্টিং (অস্ট্রেলিয়া)
ক্রিকেট বিশ্ব একনামে চিনে রিকি পন্টিং নামে। দুটি করে বিশ্বকাপ জয়ী অধিনায়কের দ্বিতীয় ব্যক্তি তিনি। তার আগে ওয়েস্ট ইন্ডিজের হয়ে ক্লাইভ লয়েড ১৯৭৫ ও ১৯৭৯ সালে বিশ্বকাপ ঘরে তোলেন। পন্টিং ২০০৩ ও ২০০৭ সালে অস্ট্রেলিয়াকে টানা বিশ্বকাপ এনে দিলেও দেশকে ২০১১ সালে হ্যাটট্রিক শিরোপা জেতাতে ব্যর্থ হন। ১৯৯৬ থেকে ২০১১ পর্যন্ত মোট পাঁচটি বিশ্বকাপে অংশগ্রহণ করে ৪৫.৮৬ গড়ে করেছেন ১ হাজার ৭৪৩ রান। যা তাকে বিশ্বকাপে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহকের তালিকায় রেখেছে।

৪৬ ম্যাচের মধ্যে ৪২ ইনিংসে ব্যাট হাতে করেছেন ৫টি সেঞ্চুরি ও ৬টি হাফ সেঞ্চুরি। বিশ্বকাপে সর্বোচ্চ অপরাজিত ১৪০ রানের ইনিংস খেলেন তিনি। যেখানে মোট চারের সংখ্যা ১৪৫ আর ছয়ের সংখ্যা ৩১টি। পন্টিং বিশ্বকাপে খেলেছেন পাঁচটি শতকের ইনিংস।

কুমার চোকশানাদা সাঙ্গাকারা (শ্রীলঙ্কা)
শুধু শ্রীলঙ্কা ক্রিকেটই নয়, বিশ্ব ক্রিকেটে সর্বকালের সেরা ব্যাটসম্যানদের একজন তিনি। ক্রিকেট বিশ্ব একনামে চিনে কুমার সাঙ্গাকারা নামে। তার ডাকনাম সাঙ্গা। আধুনিক ক্রিকেটের সাঙ্গা গড়েছেন অনেক কীর্তি। ২০০৩ থেকে ২০১৫ পর্যন্ত মোট চারটি বিশ্বকাপে অংশগ্রহণ করে ৫৬.৭৪ গড়ে করেছেন ১ হাজার ৫৩২ রান। বিশ্বকাপ মঞ্চে ৩৭ ম্যাচের মধ্যে ব্যাটিং করেছেন ৩৫টি ইনিংসে।

যেখানে রয়েছে ৫টি সেঞ্চুরি ও ৭টি হাফ সেঞ্চুরি। বিশ্বকাপে সর্বোচ্চ ১২৪ রানের ইনিংস খেলেন তিনি। তার এই দেড় হাজার রানে আছে ১৪৭টি চার আর ১৪টি ছয়ের মার।

ব্রায়ান চার্লস লারা (ওয়েস্ট ইন্ডিজ)
বিশ্বক্রিকেটে রেকর্ডের বরপুত্র বলা হয়ে থাকে তাকে। তিনি ক্রিকেট বিশ্বে ব্রায়ান লারা নামেই অধিক পরিচিত। ক্রিকেটে শচীনের এত এত রেকর্ড। তবুও রেকর্ডের বরপুত্রের খ্যাতি লারার। ক্রিকেট পণ্ডিতরা বলেন, ব্র্যাডম্যানের পর দ্রুত রান তোলায় লারাই সেরা। তাকে এ স্বীকৃতিটা কিন্তু এমনিতেই দেওয়া হয়নি। ব্যাটের ঝলকানিতে আদায় করে নিয়েছেন লারা।

টেস্ট ক্রিকেটের ইতিহাসে এক ইনিংসে রেকর্ড চারশ রানের মালিক এখনও এ ক্যারিবীয়ান। বিশ্ব ক্রিকেটের অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করা এই ব্যাটসম্যান ১৯৯২ থেকে ২০০৭ পর্যন্ত মোট পাঁচটি বিশ্বকাপে অংশগ্রহণ করেছেন। ৩৪টি ম্যাচের মধ্যে ৩৩ ইনিংসে ব্যাট হাতে ৪২.২৪ গড়ে ২টি সেঞ্চুরি ও ৭টি হাফ সেঞ্চুরিতে করেছেন ১ হাজার ২২৫ রান। বিশ্বকাপের মঞ্চে সর্বোচ্চ ১১৬ রানের ইনিংস খেলেন তিনি।

আব্রাহাম বেঞ্জামিন ডি ভিলিয়ার্স (দক্ষিণ আফ্রিকা)
বিশ্ব ক্রিকেটের সবচেয়ে হতভাগা ক্রিকেটার হলেন তিনি। যাকে বিশ্বমঞ্চ এবি ডি ভিলিয়ার্স নামেই চিনে। দীর্ঘ ১৪ বছরের ওয়ানডে ক্যারিয়ারে জিততে পারেননি কোনও বিশ্বকাপ। সবশেষ ২০১৫ বিশ্বকাপে সেমিফাইনালে নিউজিল্যান্ডের কাছে হেরে ছিটকে যেতে হয় বিশ্বকাপ জয়ের খুব কাছ থেকে। দক্ষিণ আফ্রিকা ক্রিকেট নয় শুধু, তার নান্দনিক ব্যাটিং জয় করেছে গোটা বিশ্বজুড়ে কোটি ক্রিকেট ভক্তের মন।

২০০৭ থেকে ২০১৫ পর্যন্ত মোট তিনটি বিশ্বকাপে অংশগ্রহণ করে ৬৩.৫২ গড়ে করেছেন ১ হাজার ২০৭ রান। ২৩টি ম্যাচের মধ্যে ২২টিতে ব্যাটিং করে ৪টি সেঞ্চুরি ও ৬টি হাফ সেঞ্চুরি করেছেন। বিশ্বকাপে সর্বোচ্চ অপরাজিত ১৬২ রানের ইনিংস খেলেন তিনি।

এএ