Templates by BIGtheme NET
সদ্যপ্রাপ্ত সংবাদ

জেনেভায় আন্তর্জাতিক শ্রম সম্মেলনে মালয়েশিয়ার মানব সম্পদমন্ত্রী

আহমাদুল কবির, মালয়েশিয়া থেকে:
সুইজারল্যান্ডের জেনেভাতে আন্তর্জাতিক শ্রম সম্মেলনে মালয়েশিয়ার মানব সম্পদমন্ত্রী এম কুলাসেগারান অংশ নিয়েয়েছেন।
মালয়েশিয়ার সরকারি সংবাদ সংস্থা বারনামা সূত্রে জানা গেছে, মানব সম্পদ মন্ত্রী এম কুলাসেগারান আন্তর্জাতিক শ্রম সম্মেলন (আইএলসি) জেনেভা, সুইজারল্যান্ডের ১০৮ তম অধিবেশনে মালয়েশিয়ার প্রতিনিধি দলের নেতৃত্ব দিচ্ছেন। সম্মেলনে শ্রম সম্পর্কিত বিষয়ে আলোচনার কথা রয়েছে।

আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থার (আইএলও) আয়োজিত চলমান বার্ষিক অনুষ্ঠান গত ১০ জুন শুরু হওয়া এ সম্মেলন শেষ হবে আগামী ২১ জুন।

মালয়েশিয়ার হিউম্যান রিসোর্স মন্ত্রণালয়ের এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, মালয়েশিয়ার প্রতিনিধিরা মালয়েশিয়ার নিয়োগকর্তা ফেডারেশন (এমইএফ) এর মালিকানাধীন প্রতিনিধিদের প্রতিনিধি, মালয়েশিয়ান ট্রেডস ইউনিয়ন (এমটিইউসি) এবং জনসাধারণের কর্মচারীদের ইউনিয়ন পরিষদের সরকারি কর্মকর্তার এবং সিভিল সার্ভিস মালয়েশিয়া (CUEPACS) শ্রমিক প্রতিনিধিরা সম্মেলনে অংশ নিয়েছেন।

তারা পূর্ণাঙ্গ অধিবেশনে, বিশেষ ফোরামের পাশাপাশি তিনটি প্রযুক্তিগত, স্ট্যান্ডার্ড অফ অ্যাপ্লিকেশন, বিশ্বব্যাপী শ্রম সহিংসতা ও হত্যাকাণ্ডের দায় নির্ধারণ এবং শতাব্দীর ফলাফলের ডকুমেন্টারি প্রোগ্রামে উপস্থিত থাকবেন।

মন্ত্রী আশা প্রকাশ করেন যে অধিবেশনগুলোতে বক্তব্য প্রদান করা হবে এবং আন্তর্জাতিক শ্রম মানদন্ডে বিশেষ করে সুষ্ঠু কাজের পরিবেশ নিশ্চিত করার ক্ষেত্রে মালয়েশিয়া যে অগ্রগতি অর্জন করেছে এবং ভবিষ্যতের কর্মপরিবেশের গ্লোবাল কমিশনের রিপোর্টের উপর মন্তব্য প্রদান করবে।

বিবৃতিতে বলা হয়, ভবিষ্যতের কাজের বিষয়ে এশিয়া প্যাসিফিক গ্রুপ মন্ত্রিপরিষদ সভায় তিনি কথা বলতে এবং আসিয়ান লেবার মন্ত্রীদের সাথে মিলিত হবেন।

এ ছাড়া ইউরোপীয় ইউনিয়নের দেশগুলি পারস্পরিক স্বার্থে বিশেষ করে কারিগরি ও বৃত্তিমূলক শিক্ষা ও প্রশিক্ষণের বিষয়ে আলোচনা এবং ইতালির তুরিন-এ আইএলও ইন্টারন্যাশনাল ট্রেনিং সেন্টার সফর করবেন। এশিয়া অঞ্চলের শ্রম সম্পর্কিত বিষয়ে মালয়েশিয়ার ইনস্টিটিউট অব লেবার মার্কেট ইনফরমেশন এন্ড এনালাইসিস কে কেন্দ্রস্থল করতে সহযোগিতার জন্য মন্ত্রণালয়ের পক্ষে আলোচনা করা হবে।

আন্তর্জাতিক শ্রম মানগুলি বজায় রাখার ক্ষেত্রে মালয়েশিয়ার প্রতিশ্রুতি প্রদর্শন করার পাশাপাশি জাতীয় পর্যায়ে যথাযথ কাজের উন্নয়নে দেশের গুরুত্বের প্রতিফলন করবেন মন্ত্রী এবং আইএলও-এর সাথে ডিসেন্ট ওয়ার্ক কান্ট্রি প্রোগ্রামের স্বাক্ষর করারও প্রত্যাশা করেন। ২১ জুন পূর্ণাঙ্গ অধিবেশনে উচ্চ পর্যায়ের বৈঠকে ১৮৭ সদস্য রাষ্ট্রের পাশাপাশি ৩৬টি দেশের রাষ্ট্রপতি সমাপনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকবেন বলে জানা গেছে।

উল্লেখ্য, বিদেশি শ্রমিক নির্ভর মালয়েশিয়ার উৎপাদন ব্যবস্থা এবং উন্নত বিশ্বে পণ্যের বাজারজাত করণের ক্ষেত্রে দিসেন্ট শ্রম ব্যবস্থাপনা ও কর্মপরিবেশ নিশ্চিত করার জন্য বর্তমান মাহাথির সরকার কাজ করছে। এ কর্মপরিবেশের সাথে বেতন, কর্মপরিবেশ, থাকা, খাওয়া ও চিকিৎসা এবং বীমা সম্পৃক্ত রয়েছে।

আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থা (আইএলও) শ্রমিকদের উন্নতি, তাদের সুযোগ-সুবিধা ও অধিকার নিশ্চিত করার লক্ষ্যে প্রতিষ্ঠিত আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থা International Labour Organization (ILO)|। ভার্সাই চুক্তি অনুযায়ী ১৯১৯ সালের ১১ এপ্রিল সংস্থাটি প্রতিষ্ঠিত হয়। ১৯৪৬ সালে এই সংস্থা জাতিসংঘের সহায়ক সংস্থা হিসেবে স্বীকৃতি লাভ করে।

এটি জাতিসংঘের সবচেয়ে পুরনো ও প্রথম বিশেষায়িত সংস্থা। এটি জাতিসংঘের একমাত্র ত্রিপক্ষীয় সংস্থা, যা সরকার, নিয়োগকর্তা বা মালিক ও শ্রমিকদের নিয়ে একসঙ্গে কাজ করে। ১৯৬৯ সালে সংস্থাটি উন্নয়নশীল দেশে শ্রমিক শ্রেণির মধ্যে শান্তি ও ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠার কারণে শান্তিতে নোবেল পুরস্কার লাভ করে।

আইএলওর সদর দপ্তর সুইজারল্যান্ডের জেনেভায় অবস্থিত। বিশ্বে ৪০টিরও বেশি দেশে আঞ্চলিক দপ্তর (ফিল্ড অফিস) রয়েছে। আইএলওর পরিচালনা পরিষদ (গভর্নিং বডি) হচ্ছে সংস্থাটির নির্বাহী পরিষদ। বছরে তিনবার (মার্চ, জুন ও নভেম্বর) জেনেভায় নির্বাহী পরিষদের বৈঠক হয়। ১০টি দেশ স্থায়ী সদস্য। এগুলো হলো ব্রাজিল, চীন, ফ্রান্স, জার্মানি, ভারত, ইতালি, জাপান, রাশিয়া, যুক্তরাজ্য ও যুক্তরাষ্ট্র। বাকি ১৮ সরকারি সদস্য প্রতি তিন বছর অন্তর সম্মেলনে নির্বাচিত হয়।

সংস্থাটি বছরে একবার আন্তর্জাতিক শ্রম সম্মেলন আয়োজন করে। এই সম্মেলনে আন্তর্জাতিক শ্রমের মানদন্ড নির্ধারণ করা হয় এবং আইএলওর বাজেট ও পরিকল্পনা অনুমোদন দেওয়া হয়।