Templates by BIGtheme NET
সদ্যপ্রাপ্ত সংবাদ
বাবর ও সিনওয়ারিতে নিজ মাটিতে পাকিস্তানের জয়

বাবর ও সিনওয়ারিতে নিজ মাটিতে পাকিস্তানের জয়

স্পোর্টস ডেস্ক:
দীর্ঘ দশ বছরের অবসান ঘটিয়ে ঘরের মাঠে খেলতে নামে পাকিস্তান ক্রিকেট টিম। করাচি জাতীয় স্টেডিয়ামে শ্রীলঙ্কাকে ৬৭ রানে হারিয়ে তিন ম্যাচ সিরিজে এগিয়ে রইল পাকিস্তান। সিরিজের প্রথম ম্যাচটি বাতিল হয়েছিল।

সোমবার (৩০ সেপ্টেম্বর) টস জিতে ব্যাট করতে নেমে বাবর আজমের সেঞ্চুরিতে সিরিজের দ্বিতীয় একদিনের ম্যাচে শ্রীলঙ্কাকে বড় টার্গেট দেয় স্বাগতিক পাকিস্তান। ৭ উইকেটে ৩০৫ রান সংগ্রহ করে পাকিস্তান। জবাবে ব্যাট করতে নেমে ২৩৮ রানেই অলআউট হয়ে যায় সফরকারীরা।

জয়ের টার্গেটে ব্যাট করতে নেমে শুরুতে উইকেট হারাতে থাকে শ্রীলঙ্কা। দলীয় ২৮ রাতে ৫ উইকেট হারিয়ে বিপদে পড়া লঙ্কানদের হাল ধরেন শেহান জয়সুরিয়া ও দাসুন শানাকা। দুজনের জুটি থেকে আসে ১৭৭ রান।

৯৬ রানে আউট হিয়ে ফিরে জান শেহান জয়সুরিয়া। দলীয় ২০৫ রানে ফরে জান আরেক ব্যাটসম্যান দাসুন শানাকা (৬৮)। এরপর আর উইকেট কেউ ধিতু হতে পারেন নি। ফলে ৪৬.৫ ওভারে ২৩৮ রানেই অলআউট হয়ে যায় সফরকারীরা।

পাকিস্তানের হয়ে উসমান শিনওয়ারি ৫ উইকেট এবং সাদাব খান ২ উইকেট ও একটি করে উইকেট শিকার করেছেন ওয়াসিম, ওয়াহাব রিয়াজ ও মোহাম্মদ আমির।

এর আগে, টসে জিতেই ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয় পাক অধিনায়ক সরফরাজ। পাকিস্তানের পক্ষে প্রথম চার ব্যাটসম্যানই ভালো সংগ্রহ পায়। উদ্বোধনী জুটিতে ফখর জামান ও ইমাম উল হক গড়ে তোলেন ৭৩ রানের জুটি। ব্যক্তিগত ৩১ রানে আউট হন ইমাম। এরপর ফখর ও বাবর আজম মিলে গড়ে তোলেন ৩১ রানের জুটি। তবে হাফসেঞ্চুরি করে ব্যক্তিগত ৫৪ রানেই আউট হন ফখর।

ফখরের বিদায়ের পর ক্রিজে এসে বাবরের সঙ্গে ১১১ রানের জুটি গড়ে তোলেন হারিস সোহেল। ব্যক্তিগত ৪০ রানে সোহেল রান আউটের ফাঁদে পড়লে ভাঙে এ জুটি। তবে একপ্রান্ত আগলে রেখে পাকিস্তানের সহঅধিনায়ক বাবর আজম তুলে নেন ক্যারিয়ারের ১১তম সেঞ্চুরি। তিনি আউট হন ১১৫ রানে। দলীয় ২৬১ রানে আউট হন বাবর। শেষদিকে ইফতিখার আহমেদের ঝড়ো ৩২ রানের ওপর ভর করে ৩০৫ রানের সংগ্রহ পায় পাকিস্তান।

লঙ্কানদের পক্ষে হাসরাঙ্গা ২টি, ইসুরু উদানা ও লাহিরু কুমারা ১টি করে উইকেট শিকার করেন।

উল্লেখ্য, দীর্ঘ দশ বছর পর দেশের মাটিতে খেলতে নামে পাকিস্তান। ২০০৯ সালে পাকিস্তানে সফররত এ শ্রীলঙ্কার টিম বাসে বোমা হামলা হয়। ফলে নিরাপত্তাজনিত কারণে পাকিস্তানে আসেনি কোনো ক্রিকেট দলই।

এর আগে শুক্রবার (২৭ সেপ্টেম্বর) সিরিজের প্রথম ওয়ানডে অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা থাকলেও বৃষ্টির কারণে ম্যাচ পরিত্যক্ত হয়। এরপর রবিবার (২৯ সেপ্টেম্বর) ভেজা আউটফিল্ডের কারণে দ্বিতীয় ওয়ানডে নিয়েও সংশয় জাগে। পরে একদিন পিছিয়ে (৩০ সেপ্টেম্বর) সোমবারে নেয়া হয়।