Templates by BIGtheme NET
সদ্যপ্রাপ্ত সংবাদ

খুচরা বাজারে পেঁয়াজের ঝাঁজ, সবজিতে আগুন, মাছে স্বস্তি

অর্থনীতি ডেস্ক:
সপ্তাহ ঘুরতে না ঘুরতেই আবারও বেড়েছে সব ধরনের সবজির দাম। ১০ থেকে ২৫ টাকা পর্যন্ত বাড়তি দামে বিক্রি হচ্ছে সবজি। সবজিতে আগুন থাকলে কিছুটা স্বস্তি মিলেছে মাছের দামে। ইলিশের দাম কমার সঙ্গে সঙ্গে কমেছে অন্য সব মাছের দাম। এদিকে গত কয়দিনের ন্যায় খুচরা বাজারে এখন কমেনি পেঁয়াজের দর।

এদিকে ডিমের দাম ডজন প্রতি ৭ থেকে ১০ টাকা বাড়লেও অপরিবর্তিত রয়েছে গরু, মহিষ, খাসি ও মুরগির মাংসের দাম।

শুক্রবার (৪ অক্টোবর) রাজধানীর বিভিন্ন বাজার ঘুরে এ চিত্র দেখা গেছে।

এ সব বাজারে খুচরা প্রতিকেজি টমেটো ১১০ থেকে ১৩০ টাকা, গাজর ৮০ থেকে ১০০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হতে দেখা গেছে। অথচ এক সপ্তাহ আগে প্রতিকেজি টমেটো ৮০ থেকে ১০০ টাকা, গাজর ৬০ থেকে ৮০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হতে দেখা গেছে।

একইভাবে প্রতিকেজিতে ১০ থেকে ১৫ টাকা পর্যন্ত বেড়ে পটল বিক্রি হচ্ছে ৪৫ থেকে ৫০ টাকা, ঝিঙা ৫০ থেকে ৬০ টাকা, করলা ও উস্তা ৭০ থেকে ৮০ টাকা, কাঁকরোল ৫০ থেকে ৬০ টাকা, বেগুন ৪০ থেকে ৮০ টাকা, ঢেঁড়স ৪০ থেকে ৫০ টাকা, শসা (হাইব্রিড) ৪০ টাকা, শসা (দেশি) ৫০ থেকে ৬০ টাকা, কচুর ছড়া ৬০ থেকে ৭০ টাকা, কচুর লতি ৫০ থেকে ৭০ টাকা, পেঁপে ৩০ থেকে ৪০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হতে দেখা গেছে। এদিকে, প্রতিকেজি ২০ টাকা কমেছে সিমের দাম। এদিন বাজারে প্রতিকেজি সিম বিক্রি করতে দেখা গেছে ১৩০ টাকা কেজি দরে। যা এক সপ্তাহ আগে বিক্রি হয়েছে ১৫০ টাকা কেজি দরে।

এছাড়া আকার ভেদে প্রতিপিস বাঁধাকপি ৪০ থেকে ৫০ টাকা, ফুলকপি ৪০ থেকে ৬০ টাকা, লাউ ৫০ থেকে ৭০ টাকা, জালি কুমড়া ৩৫ থেকে ৪৫ টাকায় বিক্রি করতে দেখা গেছে। সবজির মতোই বাড়তি দামে বিক্রি হচ্ছে সব ধরনের শাক। সপ্তাহের ব্যবধানে প্রতি আঁটি শাকে ৫ থেকে ১০ টাকা পর্যন্ত বেড়েছে। প্রতি আঁটি (মোড়া) লাল শাক ১০ থেকে ১৫ টাকা, মুলা শাক ১৫ থেকে ২০ টাকা, পালং শাক ২০ থেকে ২৫ টাকা, কুমড়া শাক ২৫ থেকে ৪০ টাকা, লাউ শাক ৩০ থেকে ৫০ টাকা এবং পুঁই শাক ২০ থেকে ৩০ টাকায় বিক্রি করতে দেখা গেছে।

খিলগাঁও বাজারের সবজি বিক্রেতা আলাল হোসেন বলেন, এখন দেশের বিভিন্ন স্থানে বন্যা দেখা দেওয়ায় সেখান থেকে সবজি আসছে না। এ কারণে বাজারে কিছুটা সবজি সরবরাহ কমায় বেড়েছে দামও।

তবে কাকরাইল বাজারের ক্রেতা ফজলুর রহমান বিক্রেতাদের অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, বাজারে কোনো সবজির ঘাটতি নেই, শীতকালীন আগাম সবজিতে বাজার ভরা। দেশের কোথাও কোথাও বন্যা হলেও এর কোনো প্রভাব নেই বাজারে। এরপরও বেশি লাভের আশায় বিক্রেতারা দাম বাড়িয়ে দিচ্ছেন।

বাজারে ইলিশ মাছের দাম কমার সঙ্গে কমেছে অন্য সব ধরনের মাছের দাম। প্রতিকেজি রুই মাছ (আকার ভেদে) বিক্রি হচ্ছে ২০০ থেকে ৩০০ টাকা, মৃগেল ১৮০ থেকে ২০০ টাকা, তেলাপিয়া ১২০ থেকে ১৫০ টাকা, পাঙাস ১২০ থেকে ১৪০ টাকা, চিংড়ি হরিণা ৩৫০ থেকে ৪০০ টাকা, বাগদা ৪০০ থেকে ৬০০ টাকা, গলদা ৪৫০ থেকে ৮৫০ টাকা, শিং ৩০০ থেকে ৭০০ টাকা, দেশি মাগুর ৬৫০ থেকে ৮৫০, বাইম ৪০০ থেকে ৭০০ টাকা, বাইলা ৩৫০ থেকে ৬৫০ টাকা, কাচকি ২৫০ থেকে ৩৫০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হতে দেখা গেছে।

দাম অপরিবর্তিত আছে মাংসের বাজারে। প্রতিকেজি গরু ও মহিষের মাংস বিক্রি হচ্ছে ৫৫০ টাকা, খাসি ৭৫০ থেকে ৭৮০ টাকা, ছাগল ৭০০ থেকে ৭২০ টাকা, বয়লার ১৪০ থেকে ১৫০ টাকা, লেয়ার (সাদা) ২২০ থেকে ২৫০ টাকা, লেয়ার (লাল) ২৫০ থেকে ২৭০ টাকা কেজি দরে।

দেশের বাজারে এসেছে মিয়ানমার ও মিসর থেকে আমদানি করা পেঁয়াজ। এর প্রভাব পাইকারি বাজারে ঠিকই পড়েছে। কিন্তু খুচরা বাজারে চিহ্ন মাত্র নেই। ক্রেতারা অভিযোগ করে বলছেন- প্রায় আগের দামেই বিক্রি করা হচ্ছে পেঁয়াজ। ঘাটতির কথা বলে এখনও কেজিতে সেঞ্চুরি হাঁকিয়ে নিচ্ছেন বিক্রেতারা। একইসঙ্গে আদা ও রসুন বিক্রি হচ্ছে খুচরা ও পাইকারি বাজারের মধ্যে বড় ব্যবধানে।

শুক্রবার সকালে রাজধানীর রামপুরা, খিলগাঁও, খিলগাঁও রেলেগেট বাজার, শান্তিনগর ও সেগুনবাগিচা কাঁচাবাজার ঘুরে এ চিত্র উঠে আসে।

কিন্তু এ দিন রাজধানীর পাইকারি শ্যামবাজারে দেখা যায়, মিয়ানমারের পেঁয়াজ ৩০ থেকে ৬০ টাকা কেজি দরে বিক্রি করা হচ্ছে। আর মিসর থেকে আসা পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ৬০ টাকা কেজি দরে। অন্যদিকে, দেশি পেঁয়াজ, যেটা ফরিদপুরের বলে সবাই জানেন, এটা বিক্রি হচ্ছে (আকারভেদে) ৬০ থেকে ৭০ টাকা কেজি দরে। আর ভারতীয় পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ৬০ থেকে ৬৮ টাকার মধ্যে। এছাড়া এ বাজারে পাইকারি দেশি রসুন (আকারভেদে) বিক্রি হচ্ছে ৮০ থেকে ১২৫ টাকা কেজি দরে। আর চায়না রসুন ১০০ থেকে ১২০ টাকা। একইসঙ্গে আদা বিক্রি হচ্ছে ১১৩ থেকে ১১৫ টাকার মধ্যে। যে প্রভাব পড়েনি খুচরা বাজারে।